নিউইয়র্কে ‘বিএনিপি কোম্পানী’ নিষেধাজ্ঞার আবেদন সাময়িক নাকচ

 

সাহেদ আলম

 বিএনপি’র মালিকানা দাবিতে নিউইয়র্কের সুপ্রিম কোর্টে দায়েরকৃত মামলার নিষেধাজ্ঞার আবেদনটি নাকচ করা হয়েছে। কুইন্সে অবস্থিত সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি জেনিস টেইলর ১৫ নভেম্বর এ আদেশ প্রদানের পর ২০ নভেম্বর তা নথিভুক্ত হয় এবং ১ ডিসেম্বর শুক্রবার তা বিবাদিপক্ষের এটর্নী নটরাজ এস বু’সহান হস্তগত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির তরফে এক সংবাদ সম্মেলনে এই নামান্জুরের প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে মামলার আইনজীবি এর্টনী নাটরাজ বু’সহান জানিয়েছেন, এখন ৮ ডিসেম্বর চুড়ান্ত রায়ে কয়েকমাসের একটি সময়সীমা বেধে দিতে পারেন আদালত। এই সময়ের মধ্যে, বিএনপি নেতাকর্মীদের তাদের নিজেদের কার্যক্রম চালাতে বাধা নেই। এবং ভবিষ্যতেও এই মামলাটি আদালতে বাতিল বলে গন্য হওয়ার ক্ষেত্র তৈরী হয়েছে, প্রাথমিক এই নামন্জুর এর মাধ্যমে।

 

উল্লেখ্য, নিউইয়র্কের জ্যাকব মিল্টন নামক এক ব্যক্তি ‘বিএনপি ইউএসএ ইনক’, ‘তারেক রহমান ইনক’, ‘জিয়াউর রহমান ইনক’ নামে অলাভজনক কর্পোরেশন খুলে গত ২৭ সেপ্টেম্বর এই কোর্টে মামলা করেন। সেই মামলায় বিএনপি, জিয়াউর রহমান এবং তারেক রহমানের নাম এবং ছবি, বিএনপির লগো ও তাদের ছবি ব্যবহারের ওপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন জানিয়েছিলেন। মামলার ইনডেক্স নম্বর ৭১৩৮৪০/১৭।

 

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ৮ জন নেতাকে বিবাদি করা হয়। এই মামলার নোটিশ পেয়েই ঐ বিবাদিরা গত ৪ অক্টোবর মাননীয় আদালতে জবাব দানের জন্যে সময় প্রার্থনা করেছিলেন। মাননীয় আদালত ৮ ডিসেম্বরের মধ্যে জবাব প্রদানের তারিখ ধার্য করেন। এমনি অবস্থায় বিবাদি মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল এর এটর্নী নটরাজ এস বু’সহান বিএনপি ও তার কার্যবিধি বিস্তারিতভাবে আদালতে উথ্বাপন করেছিলেন।   সে আলোকেই মাননীয় বিচারপতি মামলার বাদী জনৈক জ্যাকব মিল্টনের নিষেধাজ্ঞার আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন।

 

এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত ২৮ নভেম্বর একটি চিঠি প্রেরণ করেন মামলার বাদি জ্যাকব মিলন্টন বরাবরে। সেই চিঠি মাননীয় আদালতে সাবমিটের আগেই বিচারক মামলার আবেদনটি নাকচ করে দিয়েছেন বলেছেন এটর্নী নটরাজ এ বু’সহান এবং তিনি আদালতের আবেদন নাকচের নথিপত্র জনসম্মুখে সরবারহ করেন।

 

মাননীয় আদালতের সিদ্ধান্তের কপি এটর্নী নটরাজের কাছে গ্রহণের জন্যে শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলীনে টারট্যুরো ল’ ফার্মে গিয়েছিলেন মামলার অন্যতম বাদী সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুলসহ যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেত্রীবৃন্দ। এ সময় এটর্নি নাটরাজ বু’সহান যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেত্রীবৃন্দের সম্মুখে মামলার অন্যতম বাদী মোস্তফা কামাল পাশা বাবুলকে মামলার নিষেধাজ্ঞার আবেদন নামঞ্জুরের কথা জানান।

 

রোববার জ্যাকসান হাইটস এ যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ব্যানারে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে, অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন। বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ জিয়ার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এই প্রবাসে বিএনপির ঝান্ডা সমুন্নত রাখতে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি বদ্ধ পরিকর। জ্যাকব মিল্টন নামক ব্যক্তিটি কখনোই বিএনপির নেতা দূরের কথা, সমর্থকও নন বলে জানান যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেত্রীবৃন্দ। সরকারী দলের এজেন্ট হয়ে প্রবাসে বিএনপির কর্মকান্ডকে নষ্ট করার মতলবে তিনি এই মামলা করেছিলেন বলে অভিযোগ আনেন কেউ কেউ।

 

গত প্রায় ৫ বছর যাবত যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপির কোন কমিটি নেই। এ অবস্থায় বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে বিএনপির কাজকর্ম চালাচ্ছিলেন প্রবাসের কর্মী-সমর্থকরা। সংবাদ সম্মেলনে দাবী করা হয়, মিল্টনের ঐ মামলার পরিপেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির কোন কার্যক্রম থেমে নেই এবং ভবিষ্যতেও থাকবে না।

 

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্হিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতা সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ সম্রাট, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল , অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন , সোলায়মান ভূঁইয়া ,কাজী আযম, আবু সাইদ আহমদ , আব্দুল বাতিন , আমানত হোসেন আমান , রেজাউল আজাদ ভুঁইয়া , খলকুর রহমান , মাজহারুল ইসলাম জনি সহ অনেকেই।  

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাম্প্রতিক পোস্ট

সর্বাধিক পঠিত